বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে জাবি এলাকার পানি ও খাবার সরবরাহ | আমাদেরবাংলাদেশ.কম
বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০২:৩১ অপরাহ্ন
সর্বশেষঃ
বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে অবৈধ ভাবে ভারতে প্রবেশের সময় মহেশপুর  বিজিবির হাতে ৩১ জন আটক করোনা দ্রুত বেড়ে যাওয়ায়: ঢাকার সঙ্গে সাত জেলার যোগাযোগ বন্ধ ঘোষণা চার কুল,আয়াতুল কুরসিসহ বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ হারিয়ে যাচ্ছে রুপলাল হাউজ প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে নবনিযুক্ত বিমান বাহিনী প্রধানকে র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরলেন শেখ আব্দুল হান্নান বিমানবাহিনী প্রধানের দায়িত্ব নিলেন রাজনৈতিক দলের নেতাদের মুখে সর্বদা মিথ্যাচার মানায় না: কাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছেন খালেদা জিয়া ১০ লাখ টিকা দিচ্ছে বাংলাদেশকে কোভ্যাক্স: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে জাবি এলাকার পানি ও খাবার সরবরাহ

  • সর্বশেষ আপডেট রবিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

আমাদেরবাংলাদেশ ডেস্ক।। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়-সংলগ্ন গেরুয়ায় অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের জন্য খাবার সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া স্থানীয় বাড়িমালিকদের ‘চাপ প্রয়োগ’ করে শিক্ষার্থীদের জন্য পানি ও বিদ্যুৎ-সেবাও বন্ধ রাখতে বাধ্য করা হচ্ছে। এতে বিপাকে পড়েছেন হাজারো শিক্ষার্থী।

রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) শিক্ষার্থী ও স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়।

এ সময় অন্তত ৪০ জন শিক্ষার্থী ও ৪ জন স্থানীয় বাসিন্দা আহত হন। তাদের মধ্যে অন্তত ১১ জন শিক্ষার্থী গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। স্থানীয় বাসিন্দা ও শিক্ষার্থীদের এমন সংঘর্ষে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে পুরো এলাকায়।

এদিকে হামলা ও সংঘর্ষের পরে স্থানীয় মেসগুলোতে অবস্থান করতে ‘নিরাপত্তার অভাব’ দেখিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো খুলে দেওয়ার দাবি জানান শিক্ষার্থীরা। তবে সরকারের নির্দেশনা ছাড়া হল খোলা সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এরপরেই সবগুলো আবাসিক হলের তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করেন শিক্ষার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সহায়তা না পাওয়ায় অধিকাংশ শিক্ষার্থী হলে উঠতে পারছেন না। অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যালয়-সংলগ্ন এলাকায়ও থাকতে পারছেন না। ফলে বিপাকে পড়েছেন এসব শিক্ষার্থী। এদিকে বন্ধ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার সব খাবারের দোকান। ফলে চরম খাবার-সংকট দেখা দিয়েছে।

অন্যদিকে বর্তমান শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় লাগোয়া গেরুয়া, ইসলামনগর ও জামসিং এলাকার মেসগুলোয় সদ্য সাবেক অনেক শিক্ষার্থী অবস্থান করে ‘চাকরির প্রস্তুতি’ নিতেন। যারা হলে উঠতেও পারছেন না আবার বন্ধ রয়েছে খাবার, পানি, বিদ্যুৎ।

এর আগে দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সামিহা হাসান অভিযোগ করে বলেন, গেরুয়ায় স্থানীয়রা খাবারের দোকানে খাবার সরবরাহ এবং খাবারের পার্সেল সার্ভিস বন্ধ করে দিয়েছেন। এ ছাড়া গতকাল শনিবার থেকে তাদের মেসগুলোয় পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে রাখা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ব্যবসায়ী ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমি ১০০ জনের খাবার সরবরাহ করতাম। তবে এখন পুরোটা বন্ধ রাখতে হচ্ছে। স্থানীয়রা চাপ দিচ্ছেন, বলছেন, খাবার সরবরাহ বন্ধ না করলে ‘সমস্যা হবে’। ফলে বাধ্য হয়ে খাবার সরবরাহ বন্ধ রাখতে হচ্ছে। আমিসহ আরও অন্তত ১২ জন ব্যবসায়ী আমরা হোম ডেলিভারি সার্ভিস চালু রেখেছিলাম তাতে অন্তত ৭০০ নিয়মিত ভোক্তা ছিল আমাদের। এখন আমরা কাউকে খাবার সরবরাহ করতে পারছি না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান ঢাকা পোস্টকে বলেন, খাবার সরবরাহ বন্ধ রেখে টেকনিক্যাল চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটক এলাকায় যেসব দোকান আছে, সেখানে খাবার খেতে পারে। নিজস্ব কোনো সিদ্ধান্তে নয় বরং সরকারি সিদ্ধান্তে বন্ধ আছে বিশ্ববিদ্যালয়।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে খাবারের দোকানগুলো খুলতে সরকারি নির্দেশনার প্রয়োজন আছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, চালু করতে হলে বিশ্ববিদ্যালয় যেহেতু বন্ধ, সেহেতু আমাদের কিছু করার নেই। তবে প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত এলে আমরা ব্যবস্থা নেব।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved ©আমাদের বাংলাদেশ ডট কম
Developed By amaderbangladesh.com