বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন রবিবার পর্যন্ত প্রত্যাহার | আমাদেরবাংলাদেশ.কম
বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষঃ
বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে অবৈধ ভাবে ভারতে প্রবেশের সময় মহেশপুর  বিজিবির হাতে ৩১ জন আটক করোনা দ্রুত বেড়ে যাওয়ায়: ঢাকার সঙ্গে সাত জেলার যোগাযোগ বন্ধ ঘোষণা চার কুল,আয়াতুল কুরসিসহ বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ হারিয়ে যাচ্ছে রুপলাল হাউজ প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে নবনিযুক্ত বিমান বাহিনী প্রধানকে র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরলেন শেখ আব্দুল হান্নান বিমানবাহিনী প্রধানের দায়িত্ব নিলেন রাজনৈতিক দলের নেতাদের মুখে সর্বদা মিথ্যাচার মানায় না: কাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছেন খালেদা জিয়া ১০ লাখ টিকা দিচ্ছে বাংলাদেশকে কোভ্যাক্স: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন রবিবার পর্যন্ত প্রত্যাহার

  • সর্বশেষ আপডেট শনিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

ববি সংবাদদাতা।। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা ঘটনায় দুই বাস শ্রমিককে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বরিশাল থেকে ২১ রুটে যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বাস চালকরা। অন্যদিকে, দুই শ্রমিককে গ্রেপ্তার লোক দেখানো উল্লেখ করে সড়ক অবরোধ চালিয়ে যাচ্ছিলেন শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) রাত আড়াইটায়, নগরীর রুপাতলী বাস টার্মিনাল থেকে এমকে পরিবহনের সুপারভাইজার আবুল বাশার রনি (২৭) ও সাউথ বেঙ্গল পরিবহনের হেলপার ফিরোজ (২৪) নামের দুই পরিবহণ শ্রমিককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

এই খবর শিক্ষার্থীদের কাছে পৌছানোর পরও শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বরিশাল পটুয়াখালী কুয়াকাটা মহাসড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীর। ওই দুইজন হামলার ঘটনার সঙ্গে আদৌ জড়িত কি-না এ নিয়ে সন্দেহ করছেন তারা। একই সাথে বিষয়টিকে লোক দেখানো দাবি করে তাদের দেয়া তালিকা অনুসারে গ্রেপ্তারের দাবি জানান শিক্ষার্থীরা।

গত মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীসহ দুই শিক্ষার্থীকে রূপাতলী বাসস্ট্যান্ডে বিআরটিসি বাসের এক শ্রমিক মারধর ও লাঞ্ছিত করেন। এর প্রতিবাদে রূপাতলী বাসস্ট্যান্ডসংলগ্ন মহাসড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে রফিক নামের অভিযুক্ত বাস শ্রমিককে গ্রেপ্তার করতে বাধ্য হয় পুলিশ। পরে ওই রাতে ছাত্রদের মেসে হামলা চালানো হয়। শ্রমিকেরা ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোঁটা দিয়ে যাঁকে যেখানে পান, সেখানে হামলা চালান। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে এ হামলার ঘটনা অব্যাহত থাকে। রাত দুইটার দিকে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনে এবং আহত বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায়। হামলার ঘটনায় বিচারের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে শিক্ষার্থীরা।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved ©আমাদের বাংলাদেশ ডট কম
Developed By amaderbangladesh.com